শ্রীলংকা ছেড়ে পালানোর প্রচেষ্টায় ‘অযোগ্য’ নেতারা, বিমানবন্দর অবরোধ করলো বিক্ষোভকারীরা

শ্রীলংকায় চলমান তুমুল বিক্ষোভ-সহিংসতার মধ্যে সংসদ সদস্যরা যেন দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন, সেজন্য দেশটির প্রধান বিমানবন্দর অবরোধ করেছেন সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একদল বিক্ষুব্ধ তরুণ কাতুনায়েকে মুক্তবাণিজ্য জোন (এফটিজেড) এলাকার সড়কে অবস্থান নিয়েছেন। তারা রাস্তায় আড়াআড়ি করে যানবাহন রেখে অবরোধ করেছেন। ওই সড়ক দিয়ে শ্রীলংকার প্রধান বিমানবন্দর বন্দরনায়েক ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে প্রবেশ করতে হয়।

বিক্ষোভকারীরা বলছেন, চলমান বিক্ষোভের মুখে প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের পদত্যাগের পর যাতে সংসদ সদস্যরা দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন, সে জন্য তারা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রবেশমুখে সড়ক আটকেছেন।

গতকাল সোমবার তুমুল বিক্ষোভের মুখে প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়তে বাধ্য হন মাহিন্দা রাজাপাকসে। তাতেও জনরোষ কমেনি। গতকাল রাতে হাজারো বিক্ষোভকারী কলম্বোয় রাজাপাকসের বাসভবনের মূল ফটক ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়েন। তারা রাজধানীর ‘টেম্পল ট্রিজ’ বাসভবনের মূল দোতলা ভবনে হামলার চেষ্টা করেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রী তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আটকা পড়েন।

পরে মঙ্গলবার ভোরের আলো ফোটার আগেই সেনা পাহারায় কলম্বোর সরকারি বাসভবন ছাড়েন মাহিন্দা রাজাপক্ষে। দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ত্রিঙ্কোমালি শহরে একটি নৌঘাঁটিতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি। ওই নৌঘাঁটিও ঘিরে রেখেছেন বিক্ষোভকারীরা। বিক্ষোভের লাগাম টানতে গত শুক্রবার থেকে শ্রীলংকাজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। চলছে কারফিউ। এখন পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

করোনার ধাক্কার পাশাপাশি সরকারের কিছু ভুল সিদ্ধান্তে দেশটির ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক দুর্দশার মুখে পড়েছে শ্রীলংকা। কয়েক মাস ধরে খাবার, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র সংকটে পড়েছে দেশটি। ব্যাপকভাবে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে, চলছে বিদ্যুৎ–বিভ্রাট। এ পরিস্থিতিতে সরকার পতনের দাবিতে এক মাসের বেশি সময় দেশটিতে বিক্ষোভ চলছে। সেই সঙ্গে চলছে চরম রাজনৈতিক অচলাবস্থা।

Related Posts

© 2024 Tech Informetix - WordPress Theme by WPEnjoy