পল্লবীর মৃত্যু কী আত্মহত্যা নাকি অন্য কোনো রহস্য? বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ

বাংলা টেলিভিশনের উঠতি নায়িকা পল্লবী দে–এর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয় রবিবার তাঁর গড়ফার আবাসন থেকে। গড়ফা থানার পুলিশ প্রাথমিকভাবে এই মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলেছেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্টে তেমনটাই ইঙ্গিত। পল্লবী দে–এর এই মৃত্যু আমাদের মনে করিয়ে দেয় ‘‌বালিকা বধূ’‌ খ্যাত আর এক বাঙালি অভিনেত্রী প্রত্যুষা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যুকে।

পল্লবীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার
রবিবার সকালে গড়ফার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয় ‘‌আমি সিরাজের বেগম’‌ খ্যাত পল্লবী দে-এর ঝুলন্ত দেহ। তাঁর গলায় বিছানার চাদর জড়ানো ছিল। দরজা ভেঙে ঢুকে অভিনেত্রীর ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান বলে দাবি করেন পল্লবীর লিভ-ইন সঙ্গী সাগ্নিক চক্রবর্তী। তারপর পুলিশে খবর দেওয়া হয়। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় পুলিশ।

মৃত্যুর আগের রাতে ইনস্টায় স্টোরি
পল্লবী দে-এর মৃত্যু নিয়ে একাধিক প্রশ্ন উঠে আসছে। শনিবার রাতে যে মেয়ে বৃষ্টির সন্ধ্যা উপভোগ করার জন্য বাইরে বেরিয়ে মোমো খেয়েছেন, প্রেমিক সাগ্নিকের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন, রবিবার সেই মেয়ে কিনা আত্মহত্যা করে বসল?‌ পুলিশের জিজ্ঞাসার মুখে সাগ্নিক অবশ্য জানিয়েছেন যে শনিবার রাত থেকেই তাঁর সঙ্গে ঝগড়া হয় পল্লবীর, যা রবিবার সকাল পর্যন্ত চলে। এরপরই কিছুক্ষণের জন্য বাইরে বের হন সাগ্নিক, বাড়িতে ফিরে এসে দেখেন দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। গত বছর পল্লবীর জন্মদিনে রীতিমতো সারপ্রাইজ প্রপ্রোজ করেন সাগ্নিক। আংটি বদলও হয় দু’‌জনের। পল্লবীও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রায়ই তাঁর ও সাগ্নিকের ছবি শেয়ার করতেন।

দেড় বছর ধরে লিভ–ইনে থাকতেন পল্লবী ও সাগ্নিক
পরিবার ও ইন্ডাস্ট্রিতে যাঁরা পল্লবীকে চেনেন তাঁরা জানিয়েছেন, খুব জেদি প্রকৃতির মেয়ে ছিলেন পল্লবী আর রেগে গেলে মাথার ঠিক থাকত না। কাজকে খুবই ভালোবাসতেন। তবে সাগ্নিককে নিয়ে পল্লবী তাঁর ছোট একটি পৃথিবী সাজিয়েছিলেন গড়ফার ফ্ল্যাটে। কাজের চাপে একে-অপরকে সময় দিতে না পারার কারণেই লিভ-ইন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। পল্লবীর মৃত্যুর পর তাঁর পরিবার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলেছেন সাগ্নিকের বিরুদ্ধে।সংবাদমাধ্যমে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে অভিনেত্রীর পরিবার বলেছে, পল্লবী আত্মহত্যা করতে পারেনা। যদি আত্মহত্যা করেও থাকে তাহলে তা করতে বাধ্য করা হয়েছে। আসল দোষীর শাস্তি চাই।

পল্লবীর বন্ধু সায়কের প্রতিক্রিয়া
পল্লবীর বন্ধু অভিনেতা সায়ক চক্রবর্তী জানান, দিন দুয়েক আগে সমস্যা দেখা গিয়েছিল অভিনেত্রী এবং সাগ্নিকের মধ্যে। এর পর মিটমাটও হয়ে যায়। একসঙ্গে নাকি নৈশভোজেও গিয়েছিলেন তাঁরা। পল্লবীর ফ্ল্যাটের কেয়ারটেকার জানান, শনিবার রাতে সাগ্নিকের সঙ্গেই বাড়ি ফিরেছিলেন অভিনেত্রী। প্রায় দেড়বছর ধরে স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়েই গড়ফার ফ্ল্যাটে থাকতেন সাগ্নিক ও পল্লবী।

পল্লবীর কেরিয়ার
‘আমি সিরাজের বেগম’ ধারাবাহিকে লুৎফা-র চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন পল্লবী। তার আগে ‘রেশম ঝাঁপি’ ধারাবাহিকেও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। বর্তমানে ‘মন মানে না’ নামে আর একটি ধারাবাহিকের মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছিলেন। এছাড়া ‘‌কুঞ্জছায়া’‌ নামে একটি ধারাবাহিকেও অভিনয় করেছিলেন তিনি।

Related Posts

© 2024 Tech Informetix - WordPress Theme by WPEnjoy